নেইমার–এমবাপ্পেরাই জিতল ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান

নেইমার–এমবাপ্পেরাই জিতল ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান

১০ ম্যাচ বাকি থাকতেই শেষ করে দেওয়া ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান। ম্যাচপ্রতি পয়েন্টের হিসেবে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে প্যারিস সেন্ট–জার্মেই (পিএসজি)
লিগের বাকি ছিল ১০ ম্যাচ। এক ম্যাচ কম খেলেও ১২ পয়েন্টে এগিয়ে ছিল প্যারিস সেন্ট-জার্মেই (পিএসজি)। এই অবস্থাটা শিরোপাটা না দিয়ে লিগ বাতিল করা হলে একটা অবিচারই করা হতো পিএসজির ওপর। কিন্তু সেটা আর হলো না। এমবাপ্পে-নেইমারদের দলকে শিরোপা দিয়েই কাল লিগের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি টানল ফ্রেঞ্চ লিগ কর্তৃপক্ষ (এলএফপি)।

গত মঙ্গলবারই ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী এদুয়ার্দো ফিলিপে দেশটিতে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব ধরনের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা বন্ধের ঘোষণা দিয়েছিলেন। তাতেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল, এই মৌসুমে আর মাঠে ফিরবে না ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান। কিন্তু আনুষ্ঠানিক ঘোষণা, আর সে ঘোষণায় শিরোপাপ্রত্যাশী পিএসজির ভাগ্যে কী হয়, এটাই ছিল দেখার। শেষ পর্যন্ত পিএসজিকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করেই টানা হলো লিগের সমাপ্তি।

গতকাল এক কনফারেন্স কলে এলএফপির সভাপতি নাতালি বোয়া দে লা তুর লিগের শেষ টানার ঘোষণা দেন, ‘এই ঘোষণায় কোনো অস্পষ্টটতা নেই। মৌসুম নিয়ে আমাদের চূড়ান্ত একটি সিদ্ধান্ত নেওয়া ছিল। আমরা তা নিয়েছি। আমরা এখন জানি যে মৌসুম শেষ হয়ে গেছে। ইউরোপের বড় পাঁচটি লিগের মধ্যে ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানই প্রথম যারা মৌসুমের সমাপ্তি টেনেছে। ফ্রান্সের প্রতিবেশী ইংল্যান্ড, জার্মানি, ইতালি ও স্পেনের ফুটবল কর্তৃপক্ষ অবশ্য এখনো চাচ্ছেন মাঠে ফুটবল ফিরিয়ে এনেই মৌসুম শেষ করতে। তবে আরেক ইউরোপিয়ান ফুটবল শক্তি হল্যান্ডের শীর্ষ লিগ বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। সেখানে কাউকে চ্যাম্পিয়ন কিংবা অবনমিতও করা হয়নি।

এলএফপি পিএসজিকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করেছে ম্যাচপ্রতি প্রাপ্ত পয়েন্টের হিসেবে। পুরো পয়েন্ট তালিকাই এভাবে সাজিয়ে অবনমনও ঘোষণা করা হয়েছে। গত মার্চে লিগ যখন বন্ধ হয় ১০ রাউন্ড বাকি ছিল মৌসুমের। পিএসজি ও স্ত্রাসবুর্গের অবশ্য একটি করে ম্যাচ হাতে ছিল।
এই হিসেবে পিএসজির ম্যাচপ্রতি পয়েন্ট হয়েছে ২.৫২। ম্যাচপ্রতি ২ পয়েন্ট নিয়ে রানার্সআপ হয়েছে আন্দ্রে ভিলাস–বোয়াসের মার্শেই। তাতে দলটির চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলাও নিশ্চিত হয়েছে। পিএসজির মালিক নাসের আল খেলাইফি শিরোপা উৎসর্গ করেছেন করোনার বিপক্ষে লড়াই করা স্বাস্থ্যকর্মীদের।

এই নিয়ে নয়বার ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানে চ্যাম্পিয়ন হলো পিএসজি। এর সাতবারই কাতারি মালিক আল খেলাইফি দায়িত্ব নেওয়ার পর সর্বশেষ আট মৌসুমে। লিগে তৃতীয় হয়ে আগামী মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলার সুযোগ পেয়েছে রেনে। চতুর্থ হয়ে ইউরোপা লিগ নিশ্চিত করেছে লিল। দ্বিতীয় স্তরে নেমে গেছে তুলুজ ও আমিঁয়ে। দ্বিতীয় স্তর থেকে লিগ ওয়ানে উঠেছে লোরিয়াঁ ও লেঁস। ১০ রাউন্ড হাতে রেখেই মৌসুম শেষ করে দেওয়ায় বড় অঙ্কের আর্থিক ক্ষতিই হচ্ছে এলএফপির। টিভি স্বত্ত্ব থেকে প্রায় ২৭৮ মিলিয়ন ইউরো বা প্রায় ২৫০০ কোটি টাকা হারাতে পারে লিগ কর্তৃপক্ষ।

Leave a Reply